পরীমনির ঘটনার রাতে বোট ক্লাবের ভিতরে আসলে কি ঘটেছিল!!

পরীমনির ঘটনার রাতে বোট ক্লাবের ভিতরে আসলে কি ঘটেছিল!!

0

ফজলুল বারী: পরীমনির ঘটনার রাতে বোট ক্লাবের ভিতরে আসলে কি ঘটেছিল তা জানার চেষ্টা করছিলাম। কারন সে রাতে বোট ক্লাবের ভিতরে অনেক মানুষের মতো নাসির ইউ আহমেদও মাতাল ছিলেন। আমার সূত্র বলেছে পরীমনিও মাতাল ছিলেন সে রাতে। বিদেশে পাব ক্লাবে যারা কাজ করেন তাদের আরএসএ নামের একটি ট্রেনিং’এর সনদ থাকতে হয়। (Responsible service of alcohol)
আরএসএ ট্রেনিং এর গুরুত্বপূর্ণ একটি দিক হচ্ছে কোন মাতাল লোককে পাব-ক্লাবে ঢুকতে দেয়া হয়না থাকতে দেয়া হয়না। গেট থেকেই বিদায় করে দেয়া হয়। বিনীতভাবে বলে চলে যেতে বাধ্য করা হয় গেট বা ক্লাব থেকে। বা নির্দিষ্ট সময়ের পর কারো কাছেই বিক্রি করা হয়না মদ। মাতাল লোকজন এই আইনের বরখেলাপ করলে চলে যেতে না চাইলে পুলিশ ডেকে তাদের তুলে দেয়া হয় যথাযথ আইনি কর্তৃপক্ষের হাতে।
কিন্তু বাংলাদেশে যেহেতু সামাজিক রাজনৈতিক অর্থনৈতিক প্রভাবশালীরা এসব ক্লাবে যান তাই এমন কাউকে কোন দিন পুলিশ ডেকে তুলে আইনের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে এমন নজিরের কথা শোনা যায়নি। পরীমনির ঘটনার পর অনেক প্রতিক্রিয়া ছিল বেয়াদব মেয়ে মানুষ রাতের বেলা মদ খাবার ক্লাবে যাবে কেনো। ওই অধিকারতো শুধু ছেলেদের, ইত্যাদি।
এখন প্রশ্ন সে রাতে বোট ক্লাবে এত মাতাল থাকতে আর কারো বিরুদ্ধে পরীমনি অভিযোগ করলেন না কেনো? এ নিয়ে আমার সোর্সের বক্তব্য হচ্ছে মাতাল নাসির ইউ আহমদ সেখানে পরীমনির গায়ে হাত তুলেছিলেন। তিনি সেই বোট ক্লাবের মালিক পক্ষের লোক অথবা সদস্য হিসাবে মালিকদের একজন। তিনি নিজে মাতাল হতে পারেন কিন্তু তিনি তার সামনে আরেক মাতালকে সহ্য করেননি। তার সামনে মাতলামি করে সে আবার একটা মেয়ে এমন স্পর্ধা! তাই তিনি তার গায়ে হাত তুলে মারধর শুরু করলে পরীমনি মাটিতে পড়ে যান।
কাজেই তার আরেকজনের গায়ে তথা একজন নারীর গায়ে হাত তোলার অপরাধ ঢাকতে তৎপর হয় বোট ক্লাব কর্তৃপক্ষ। পুলিশ বলেছে পরীমনি যখন তাদের কাছে অভিযোগ করতে আসেন তখন তিনি অপ্রকৃতস্থ ছিলেন। এমন কেউ পুলিশের কাছে এলে বা পুলিশ কাউকে পেলে পুলিশের কাজ হলো হাসপাতালে নিয়ে তাকে ওয়াশ করে আইনানুগ পদক্ষেপ নেয়া। যার বিরুদ্ধে অভিযোগ তার মেডিক্যাল টেস্ট করার উদ্যোগ না নিয়ে পুলিশ আইনের আরেকটি বরখেলাপ করেছে।
কিন্তু পুলিশ যেহেতু শুরুতেই ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে তৎপর হয় তাই আইনানুগ কোন পদক্ষেপই নেয়া হয়নি। অভিযোগ যেহেতু নাসির ইউ আহমেদের মতো আইজিপির বন্ধু একজন সামাজিক রাজনৈতিক এলিটের বিরুদ্ধে তাই উচ্চতর ওহী বিনা পুলিশ কোন ঝুঁকি নিতে যায়নি। এরপর পরীমনির সংবাদ সম্মেলনের পর ঘটনা নিয়ে হৈচৈ শুরু হয় তখন তা ধামাচাপা দিতে নাসির ইউ আহমদ সহ দু’জনকে গ্রেফতার করা হয়।
যারা মদ বিক্রির ক্লাব চালান তার বাড়ি থেকে দেখানো হয় মদ উদ্ধারের মুখস্ত হাল্কা রসিকতা! যার ট্রাভেল এজেন্সীর ব্যবসা তার প্রতিষ্ঠান থেকে উদ্ধার দেখানো হয় টিকেট প্রার্থীদের পাসপোর্ট! ওয়াকিফহালদের মতে ধামাচাপা দেবার উদ্যোগের কারন এমন একজনের নাম চলে আসছিল যিনি ওই চেয়ারে বসে বাংলাদেশের মতো দেশে মদ বিক্রির ক্লাব চালাতে পারেননা।
এখন জামিনে মুক্ত নাসিরের ইন্টারভ্যু যারা করছেন তারা তার প্রতি ভালোবাসা দেখিয়ে তার উপকার করছেন? না প্রায় ভুলে যাওয়া বিষয়টি উস্কে দিয়ে তার ক্ষতি করছেন? তিনিতো একজনের গায়ে তথা এক নারীর গায়ে হাত দিয়েছেন অথবা অভিযোগ মতো আরও কিছু করার চেষ্টা করেছেন। না বলবেন তিনি যেহেতু মাতাল ছিলেন অতএব সব মাফ? আইনে মাতাল প্রমান করতে পারলে আবার বাড়তি সুবিধা পাওয়া যায়। কিন্তু আইনের শাসন থাকলে কারো গায়ে হাত তোলার, তিনি নারী হলে তার সংগে বেশি কিছু অপরাধ চেষ্টার কিছু না কিছু শাস্তিতো আছেই। না এসব শাস্তি মওকুফের সমঝোতার জন্য নাসির ইউ আহমদকে জামিনে মুক্তি দেয়া হয়েছে? সরকারের নৌপরিবহন মন্ত্রনালয় যখন নদী উদ্ধারের প্রানান্ত চেষ্টা করছে তখন তুরাগ নদীর জায়গা দখল করে প্রভাবশালীরা বানিয়ে চালাচ্ছে এই বোটক্লাব!

ফজলুল বারী
fazlulbari2014@gmail.com

Facebook Comments

You may also like

কিংবদন্তির সাংবাদিক নাজিম উদ্দিন মোস্তানের ৭৪তম জন্ম বার্ষিকী উদযাপন

ফজলুল বারী :বাংলাদেশের আধুনিক সাংবাদিকতার অন্যতম পথিকৃৎ, একুশে