সিডনীতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ অস্ট্রেলিয়ার, শোক দিবস উদযাপন

সিডনীতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ অস্ট্রেলিয়ার, শোক দিবস উদযাপন

87
0

 গত ২৭ অগাস্ট রোববার সিডনির ম্যাসকট হলিডে ইন এ বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ, অস্ট্রেলিয়া কর্তৃক পালন হয়েছে বঙ্গবন্ধুর ৪২তম মৃত্যুবার্ষিকী।এই অনুষ্ঠানে  সভাপতিত্ব করেন  বিশিষ্ট আইনজীবী বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ, অস্ট্রেলিয়ার সভাপতি মো:  সিরাজুল হক, প্রধান অতিথি ছিলেন ম্যাক্যুরি বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের প্রাক্তন ডিন, প্রফেসর রফিকুল ইসলাম, বিশেষ অতিথি ছিলেন অস্ট্রেলিয়ায়  নিযুক্ত বাংলাদেশ   অনারারি  কনস্যুলার জেনারেল, মি. এন্থনি খৌইরি| অনুষ্ঠানটি সঞ্চালন করেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ, অস্ট্রেলিয়া শাখার সাধারণ সম্পাদক, প্রদ্যুৎ সিং চুন্নু |

বিশেষ অতিথি এন্থনি খৌইরি বাঙালি প্রবাসীদের  একতাবদ্ধ থাকার উপর গুরুত্ব আরোপ করেন। প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন বাংলাদেশে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই। বিচার বিভাগের স্বাধীনতা আমাদের দরকার সভাপতি সিরাজুল হক  বাংলাদেশের বন্যার্তদের সহায়তা করার জন্য উপস্থিত সকলকে আহবান জানান।তিনি বলেন দিনে  দিনে  বাংলাদেশ অর্থনৈতিক ভাবে শক্তিশালী হয়ে উঠেছেতবু ও অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী সকল বাংলাদেশী তাদের একদিনের আয়ের কম পক্ষে এক ঘন্টার আয় বানভাসি মানুষের জন্য পাঠানোর জন্য অনুরোধ জানান। তিনি আরো বলেন বাংলাদেশের ইতিহাসই বঙ্গবন্ধুর জীবন ইতিহাস। বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ একটি সমার্থক  শব্দ, একটি থেকে অন্যটি পৃথক করা যাবেনা।

শোক  দিবসের এই অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ, অস্ট্রেলিয়া শাখার সিনিয়র সহ সভাপতি,   মুক্তিযোদ্ধা রবিন বণিকডক্টর রতন কুন্ডগিয়াস উদ্দিন মোল্লাআব্দুল বারেক খান,  ইমদাদুল হক  বকুল , মোহাম্মদ আলী শিকদার, মোসলেউর খুসবু , হাসান শিমুল রবিন , রিজভী শাওন , লিটন , যুবলীগ নেতা  হাফিজ  ও সেচ্ছাসেবক লীগ এর সভাপতি জাকারিয়া স্বপন ও ছাত্রলীগ সভাপতি আমিনুল রুবেল সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

শোক সভায় বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সকলের জন্য দোআ ও মোনাজাত করা হয়।মোনাজাত পরিচালনা করেন মোঃ বশির অগাস্ট মাস বাঙালির শোকের মাস। বিশ্বের অন্যন্য শহরের মত অস্ট্রেলিয়ার বাণিজ্যিক শহর সিডনিতে সারা মাস জুড়ে আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগি সংগঠনগুলো বঙ্গবন্ধুর মূত্যু বার্ষিকী বার্ষিকী পালন করেন

Facebook Comments

You may also like

সিডনিতে এসো মেতে উঠি বিজয়ের আনন্দে – ১৬ই ডিসেম্বর ২০১৭

‘এসো মেতে উঠি বিজয়ের আনন্দে’ স্লোগান নিয়ে –